রোববার, ৩১ মে ২০২০

মেয়েকে ৫ ধর্ষকের হাতে তুলে দিলেন মা !

সারাবেলা রিপোর্ট

প্রকাশিত: ২১ মে ২০২০ বৃহস্পতিবার, ১০:০৮ পিএম

মেয়েকে ৫ ধর্ষকের হাতে তুলে দিলেন মা !

টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলায় এক গৃহবধূ (৩০) গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন। তাকে ধর্ষণ করতে সহায়তা করায় গৃহবধুর মা ও সাবেক দুই স্বামীকে ধর্ষণ করার দায়ে আটক করেছে পুলিশ।

ধর্ষণের ঘটনার সঙ্গে জড়িত পাঁচজনকে চিনতে পারেন ওই তরুণী । সোমবার (১৮ মে) উপজেলার পৌরশহরে এ ঘটনা ঘটে। পরদিন মঙ্গলবার ওই তরুণী তার মাসহ পাঁচজনের নামে মামলা করেন।

গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন- ওই তরুণীর মা, আমজাদ হোসেনের ছেলে আবদুল কাদের (৭০) ও মজিবর রহমানের ছেলে আবদুর রহমান (৪০)। মঙ্গলবার রাতে তাদের গ্রেফতারের পর বুধবার (২০ মে) দুপুরে টাঙ্গাইল আদালতে পাঠানো হয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ধর্ষণের শিকার তরুণী পৌরশহরে স্বামীর সঙ্গে ভাড়া বাসায় থাকেন। গত ১৮ মে রাত ১০টার দিকে ওই তরুণীকে তার মা ফোনে গুরুত্বপূর্ণ কাজ আছে বলে সখীপুর-বাটাজোর সড়কের কীর্ত্তণখোলা লোহার ব্রিজের কাছে আসতে বলেন। সেখানে আসার পরপরই একটি মোটরসাইকেলে করে মাস্ক পরা দুই ব্যক্তি তাকে জোর করে তুলে নিয়ে যায়। এসময় তার মা কোনো বাধা দেননি। পরে অজ্ঞাতস্থানে নিয়ে তাকে গণধর্ষণ করা হয়। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত পাঁচজনকে চিনতে পারেন ওই তরুণী

পৌর শহরের একটি পরিত্যক্ত দোকানে আটকে রেখে সাবেক দুই স্বামী আবদুল কাদের ও আবদুর রহমানসহ পাঁচজন মিলে পালাক্রমে গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন। এ সময় গৃহবধূ অসুস্থ হয়ে পড়লে ধর্ষকরা তাকে রেখে পালিয়ে যান। রাত ১টার দিকে বিবস্ত্র অবস্থায় পাশের এক বাড়িতে গেলে ওই বাড়ির লোকজন গৃহবধূকে কাপড় দেন। খবর পেয়ে স্ত্রীকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যান বর্তমান স্বামী।

সখীপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) এএইচএম লুৎফুল কবির উদয় বলেন, গৃহবধূর দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে ধর্ষণে সহযোগিতা করায় মা ও সাবেক দুই স্বামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের বুধবার আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়। অপর ধর্ষকদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

তিনি বলেন, বুধবার ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য গৃহবধূকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়। শারীরিক সমস্যা থাকায় আগামী ২৭ মে ডাক্তারি পরীক্ষা করা হবে জানিয়েছেন চিকিৎসক।