বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯

ফেসবুকে যা খুশি করা যাবে না : মোস্তাফা জব্বার

প্রতিবেদক, ঢাকা

প্রকাশিত: ৩০ জুন ২০১৯ রবিবার, ০৮:৫৪ এএম

ফেসবুকে যা খুশি করা যাবে না : মোস্তাফা জব্বার

আমেরিকান স্ট্যান্ডার্ড অনুযায়ী ফেসবুক কর্তৃপক্ষ ব্যবহারকারীদের পোস্ট নিয়ন্ত্রণ করেন বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তিনি বলেন, ‘আমেরিকায় একটি মেয়ে রাস্তায় হাফপ্যান্ট পরে হেঁটে গেলে তা সমস্যা না। তবে আমেরিকা ও বাংলাদেশের স্ট্যান্ডার্ড এক না। বাংলাদেশে এমন অবস্থা সম্ভব না। তাই আমেরিকান স্ট্যান্ডার্ডে না, বাংলাদেশের ব্যবহারকারীদের পোস্ট এখানকার স্ট্যান্ডার্ডে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।’

শনিবার (২৯ জুন) রাতে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তরের একটি অনুষ্ঠানে সংযুক্ত হয়ে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এর আগে দুপুরে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত ‘তারুণ্যের ভাবনায় আওয়ামী লীগ’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেছিলেন, ‘সরকার এখন যেকোনও ওয়েবসাইট নিয়ন্ত্রণে সক্ষম। সেপ্টেম্বরের পর থেকে ফেসবুক, ইউটিউবে হস্তক্ষেপ করার ক্ষমতা অর্জন করবো।’

এ বিষয়ের ওপরই একাত্তর জার্নালে আলোচনা হয়। এসময় কিসের ভিত্তিতে ফেসবুকের বিভিন্ন পোস্ট নিয়ন্ত্রণ করা হবে তা জানতে চাইলে মন্ত্রী বাংলাদেশের স্ট্যান্ডার্ডে ফেসবুক পোস্ট নিয়ন্ত্রণের কথা বলেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার জানিয়েছেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজবসহ যেকোনো তথ্য নিয়ন্ত্রণের সক্ষমতা সরকার আগামী সেপ্টেম্বরেই অর্জন করতে যাচ্ছে।

শনিবার রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে আওয়ামী লীগের আয়োজিত ‘গৌরবের অভিযাত্রায় ৭০ বছর, তারুণ্যের ভাবনায় আওয়ামী লীগ’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় একথা জানান তিনি।

মন্ত্রী বলেন, ‘ব্যক্তি স্বাধীনতা খর্ব ইচ্ছা সরকারের নেই, তবে তা যেন অন্যের ব্যক্তি স্বাধীনতা খর্ব না করে, সেটাই নিশ্চিত করবে সরকার। ফেইসবুক, ইউটিউবসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানো বন্ধে সরকার উদ্যোগী হলেও তাৎক্ষণিকভাবে তা বন্ধে সফল হচ্ছিল না।’

‘ওয়েবসাইট নিয়ন্ত্রণের সক্ষমতা অর্জন করলেও ফেইসবুক-ইউটিউবে সুনির্দিষ্ট তথ্য নিয়ন্ত্রণে সক্ষমতা এতদিন আসেনি, যা একটি সমস্যা ছিল সরকারের জন্য।’

মন্ত্রী বলেন, ‘আপনাদের জন্য সুখবর হচ্ছে, সেপ্টেম্বর মাস অতিক্রম করার পরে আমরা এই ক্ষেত্রে সরাসরি হস্তক্ষেপ করার ক্ষমতা অর্জন করব। অর্থাৎ কেউ ইচ্ছে করলেই যা খুশি তাই সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যবহার করতে পারবে না, প্রচার করতে পারবে না।’

অর্থাৎ এতদিন ফেইসবুক কিংবা ইউটিউবে কোনো তথ্য আটকাতে হলে পুরো অ্যাপটিই বন্ধ করতে হত সরকারকে, সেপ্টেম্বরের পর তা না করে যে তথ্য আটকাতে চায়, শুধু তা আটকে দিতে পারবে সরকার।

অনুষ্ঠানে তরুণদের নানা প্রশ্নের উত্তর দেন, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য এইচ টি ইমাম, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য মেরিনা জাহান।