বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯

সাংবাদিক মহসীনের সঙ্গে সোলায়মান শেঠের ঔদ্ধত্য

প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

প্রকাশিত: ২৮ মে ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৯:৫১ পিএম

সাংবাদিক মহসীনের সঙ্গে সোলায়মান শেঠের ঔদ্ধত্য

চট্টগ্রাম ওয়াসার পরিচালনা পরিষদের সভায় বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম মহাসচিব মহসীন কাজীর সঙ্গে জাতীয় পার্টির চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি সোলায়মান আলম শেঠের ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণের অভিযোগ উঠেছে। সাংবাদিক মহসীন কাজী ওয়াসার বোর্ড মেম্বার ও সোলায়মান শেঠ গ্রাহক প্রতিনিধি। শেঠের অনভিপ্রেত আচরণের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন নেতৃবৃন্দ।

সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাঈনুদ্দীন দুলাল ও সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস এক বিবৃতিতে চট্টগ্রাম ওয়াসাকে একটি জবাবদিহিমূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে সত্যিকার গ্রাহক প্রতিনিধি মনোনয়নের জন্য প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, গত ২৫ মে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম ওয়াসার বোর্ড সভায় নগরীতে পানি সরবরাহে অব্যবস্থাপনা, খোড়াখুঁড়িতে নাগরিক ভোগান্তি, ভুতুড়ে বিলে হয়রানিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। আলোচনার এক পর্যায়ে কথিত গ্রাহক প্রতিনিধি সোলায়মান আলম শেঠ ওয়াসা নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে অব্যবস্থাপনা ও অনিয়ম নিয়ে প্রকাশিত সংবাদের প্রসঙ্গ তুলে সাংবাদিকদের উপর ক্ষোভ প্রকাশ করে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য রাখেন। এ সময় সাংবাদিক প্রতিনিধি মহসীন কাজী প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে বক্তব্য থাকলে বিধি মোতাবেক বক্তব্য দেয়ার অনুরোধ করেন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনে সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতা কামনা করে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রদান থেকে বিরত থাকার আহবান জানালে সোলায়মান আলম শেঠ আরও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন এবং চরম ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ করেন।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, চট্টগ্রাম ওয়াসা একটি জনকল্যাণমুলক প্রতিষ্ঠান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নগরবাসীর পানি সমস্যা সমাধানে ইতিমধ্যে ১৩ হাজার কোটি টাকা বিভিন্ন প্রকল্পের জন্য বরাদ্দ দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর এ উন্নয়ন কার্যক্রমকে ব্যাহত করতে একটি চক্র নানাভাবে ষড়যন্ত্র করছে। গ্রাহকদের পানি সমস্যা সমাধান না করে ভুতুড়ে বিলের বোঝা চাপিয়ে এবং চলতি রমজানে বিভিন্ন এলাকাকে পানি বঞ্চিত রেখে জনগণকে সরকারের বিরুদ্ধে ক্ষেপিয়ে তোলার অপচেষ্টা চলছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, স্থানীয় সরকার বিভাগের নিয়ম অনুযায়ি ওয়াসার পরিচালনা পর্ষদে সম্মানিত গ্রাহকদের একজন প্রতিনিধি রাখার নিয়ম বিধান রয়েছে। এ পদে সোলায়মান আলম শেঠ ২০১২ সালে নিয়োগ পান। বিধি অনুযায়ী তার মেয়াদ তিন বছর অর্থ্যাৎ ২০১৫ সালে শেষ হয়েছে। কিন্তু তিনি রহস্যজনকভাবে আরও চার বছর অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করার মাধ্যমে সরকারের কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ করেছেন। সম্প্রতি এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এতে ক্ষুব্ধ সোলায়মান আলম শেঠ ওয়াসা বোর্ডের সাংবাদিক প্রতিনিধি মহসীন কাজী উপর ক্ষিপ্ত হয়। যার প্রকাশ ঘটিয়েছে বোর্ড সভার গুরুত্বপূর্ণ নীতিনির্ধারণী বৈঠকে।

চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন চট্টগ্রাম ওয়াসাকে একটি জবাবদিহিমূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে তুলতে সত্যিকার গ্রাহক প্রতিনিধি মনোনয়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের প্রতি আহবান জানান নেতৃবৃন্দ। একই সাথে সাংবাদিক প্রতিনিধি কিংবা সাংবাদিকদের সাথে ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণ থেকে বিরত থাকার আহবান জানান। অন্যথায় গণমাধ্যমকর্মীরা কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে বলে নেতৃবৃন্দ হুঁশিয়ার করেন।