বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯

ব্যাংকারের হাতে উন্নয়নের আলো

প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

প্রকাশিত: ০২ নভেম্বর ২০১৯ শনিবার, ০৮:২৭ পিএম

ব্যাংকারের হাতে উন্নয়নের আলো

পেশায় ব্যাংকার। টাকা, হিসাব, আয়-ব্যয়, লাভ-লোকসান এসব নিয়ে যার নিত্য দিনযাপন। জটিল হিসাব-নিকেশে দিন কাটলেও নিজের এলাকা, গ্রামের মানুষ আর গরীব-দু:স্থদের ভাগ্য উন্নয়নে তাঁর অহর্নিশ চিন্তা। তিনি জসিম উদ্দিন চৌধুরী। দেশের প্রথম বেসরকারি ব্যাংক এবি ব্যাংক লিমিটেডের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা।  বর্তমানে ব্যাংকটির ভাইস প্রেসিডেন্ট ও আগ্রাবাদ শাখার ব্যবস্থাপক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। 

পেশাগত কারণে চট্টগ্রাম শহরে বসবাস করলেও সামাজিক ও এলাকার উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে বরাবরই নিজেকে নিয়োজিত রেখেছেন জসিম উদ্দিন চৌধুরী। গত শনিবার তাঁর গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়ি উপজেলার পাইন্দং-এ ভিত্তি স্থাপন করা হয়েছে কমিউনিটি ক্লিনিক। যে ক্লিনিকের জন্য জমি দান করেছে তার পরিবার।

ক্লিনিকটি চালু হলে এলাকার সাধারণ মানুষ সুগার টেস্ট, রক্তচাপ মাফা, সাধারণ জ্বর, গর্ভবতী নারীদের বিশেষ কিছু সেবাসহ বিনামূল্যে বিভিন্ন প্রাথমিক চিকিতসা সেবা পাবেন। বিনামূল্যে দেওয়া হবে ১৩০ ধরনের ঐষধ।

২০১৫ সাল থেকে এলাকাবাসীর চিকিতসাসেবা নিশ্চিত করতে একটি কমিউনিটি ক্লিনিক চালুর বিষযে চেষ্টা চালিয়ে আসছিলেন জসিম চৌধুরী। কমিউনিটি ক্লিনিকের জন্য তিনি দীর্ঘদিন ধরে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগের পাশাপাশি, জেলা পরিষদ ও স্থানীয় সংসদ সদস্যের সুপারিশের ভিত্তিতে ক্লিনিকটি সরকারি অনুমোদনে ভূমিকা রাখেন।  তার মরহুম পিতার দান করা জমিতে সেই ক্লিনিকের নির্মাণ কাজ শুরুর মাধ্যমে চার বছর পর প্রত্যাশা বাস্তব রূপ পেতে যাচ্ছে।  ক্লিনিকটি নাম দেওয়া হয়েছে তোরাবীয়া রাজা মরিয়ম কমিউনিটি ক্লিনিক।  

এ উপলক্ষে ভিত্তি স্থাপন অনুষ্ঠানে শুক্রবার স্থানীয় সামাজিক সংগঠন রং বেরং একতা সংঘের পক্ষ থেকে জসিম উদ্দিন চৌধুরীকে বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হয়।

ভিত্তি স্থাপন অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউট এর সাবেক পরিচালক প্রফেসর ডাঃ আবু আজম, এবি ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট জসিম উদ্দিন চৌধুরীর, জেলা পরিষদের সদস্য আকতার উদ্দিন মাহমুদ পারভেজ, ইষ্টার্ন ব্যাংকের এসএভিপি মঈন উদ্দীন মন্জুর, আওয়ামীলীগ নেতা আবু জাফর চৌধুরী বুলবুল,আব্দুল মালেক,সাহাব উদ্দীন চৌধুরী, মাজাহারুল হক চৌধুরী, সমাজসেবী লায়ন জানে আলম, শাহাজাহান সম্রাট, রং-বেরং একতা সংঘের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি কাজী মামুন, মোরশেদ আলী, ইব্রাহিম মানিক প্রমূখ।

স্বাস্থ্যসেবায় কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মাণে ভূমিকা ছাড়াও পাইন্দং সড়কের  এক কিলোমিটার অংশ পিচ ঢালাইয়ের মাধ্যমে এলাকার যোগাযোগ উন্নয়নে জসিম চৌধুরী গুরুত্বপূর্ণ ভূমি রাখেন। তার চেষ্টা ও সহযোগিতায় স্থানীয় মসজিদে ছাদ নির্মাণ ও ইসলামী গণ পাঠাগার স্থাপিত হয়েছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সহযোগিতায় স্থাপিত এই পাঠাগারে শতাধিক বিষয়ে ইসলামিক বইপত্র রয়েছে।

ব্যাংকিংয়ের ব্যস্ত পেশার পরও এলাকাবাসীর জন্য সময় দেওয়া প্রসঙ্গে জসিম উদ্দিন চৌধুরী বলেন, মানুষের জীবন খুব ছোট। এক জীবনে নিজের এলাকার জন্য, সাধারণ মানুষের জন্য কিছু করতে পারাটাই বড় শান্তি। আমরা সবাই যদি নিজ নিজ জায়গা থেকে সাধ্যমত এগিয়ে আসি, তখন সত্যিই দেশটি বদলে যাবে।