ঢাকা, সোমবার, ২০ আগস্ট ২০১৮

কাতার বিশ্বকাপে থাকবেন মেসি ?

ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ০১ জুলাই ২০১৮ রবিবার, ০৮:৩৬ পিএম

কাতার বিশ্বকাপে থাকবেন মেসি ?

শেষ বাঁশি বাজার পর কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলেন। এরপর চুপচাপ বের হয়ে গেলেন মাঠ থেকে। হয়ত শেষবারের মতো বিশ্বকাপের মঞ্চে খেলা হয়ে গেলো লিওনেল মেসির।

ফ্রান্সের কাছে ৪-৩ ব্যবধানে হেরে বিদায় নেওয়ার পর আর্জেন্টিনা কোচ হোর্হে সাম্পাওলি বলছেন, তিনি এই বিশ্বকাপে মেসির সেরাটা বের করে আনতে পারেননি।

আর্মব্যান্ড খুলে ধীরপায়ে মাথা নত করে মাঠ ছাড়ছেন মেসি, আরও একবার বিশ্বকাপের শেষটা দেখা হলো না তাঁর। আরও একবার দেশের হয়ে বিশ্বকাপের মঞ্চে ব্যর্থ তিনি। গতকাল রাতটা যে তাঁর জন্য দুঃস্বপ্নের ছিল, তা বলাই বাহুল্য।

ভালো করতে হলে মেসির পায়েই বেশি বেশি বল দিতে হবে। প্রথম দুই ম্যাচে ব্যর্থতার পর এমনটাই বলেছিলেন সাম্পাওলি। ফ্রান্সের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার দুইটি গোলে মেসির অবদান থাকলেও নিজে তৈরি করতে পারেননি গোলের সুযোগ।

মেসিকে দলের অন্যরা সাহায্য করতে ব্যর্থ হয়েছে বলেই স্বীকার করলেন সাম্পাওলি, ‘আমাদের দলে বিশ্বের সেরা ফুটবলার আছে। কিন্তু আমরা সেটার সদ্ব্যবহার করতে পারিনি কখনোই। আমরা অনেক কৌশলই অবলম্বন করেছি, তাকে ঘিরে খেলার চেষ্টা করেছি, তার জন্য জায়গা করে দেওয়ার চেষ্টাও ছিল। আমরা সবকিছুই করেছি, কিন্তু কোনো লাভই হয়নি।’

দ্বিতীয় রাউন্ডেই বিদায় নেওয়ায় হতাশ সাম্পাওলি, ‘হয়ত আমাদের আরও ভালো দল দরকার ছিল। এভাবে বিদায় নেওয়া খুবই হতাশাজনক। দলের সবাই যেভাবে পরিশ্রম করেছে, এটার জন্য আরও খারাপ লাগছে। কোচ হিসেবে এটা খুবই কষ্টের। তবে বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়েছি বলেই অবসরের চিন্তা মাথায় আনতে চাই না।’

গতবার কোপা আমেরিকার শিরোপা না জেতায় অভিমান করেই অবসর নিয়েছিলেন লিওনেল মেসি। দুইমাস পর অবশ্য অবসর ভেঙে ফিরে এসে দলকে নিয়ে এসেছেন বিশ্বকাপে। এবারের বিশ্বকাপেও আর্জেন্টিনা বিদায় নিয়েছে দ্বিতীয় রাউন্ডেই। গুঞ্জন উঠেছে, হয়ত এরকম হারের পর পর জাতীয় দলকে বিদায় জানাতে পারেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। এরই মাঝে জাতীয় দলকে বিদায় বলে দেওয়া ডিফেন্ডার হাভিয়ের মাসচেরানো বলছেন, দলের সাথে আরও কয়েক বছর থাকা উচিত মেসির।

মেসির জন্য দুঃস্বপ্নের হলেও মেসি-ভক্তদের জন্য এ ছিল এক অনিশ্চয়তার রাত। আর কি কখনো বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার আকাশি-সাদা জার্সিতে দেখা যাবে তাঁকে? কখনো কি সোনালি রঙে রাঙা বিশ্বকাপটি উঁচিয়ে ধরবেন মেসি? প্রশ্নের উত্তরগুলো মেসিও হয়তো বলতে পারবেন না। এই প্রশ্নগুলোর মুখোমুখি হতেও ইচ্ছুক নন তিনি।

২০১৬ কোপা আমেরিকায় ফাইনালে চিলির বিপক্ষে পেনাল্টি শুট আউটে হেরে যাওয়ার পর আবেগের বশবর্তী হয়ে অবসরের ঘোষণা দিয়েছিলেন মেসি। কিন্তু প্রিয় খেলোয়াড়ের এমন সিদ্ধান্ত কেই-বা মেনে নিতে পারবে? ভক্তদের অনুরোধে নিজের সিদ্ধান্তে আর অটল থাকতে পারেননি মেসি, ফিরে এসেছেন জাতীয় দলে। দলকে টেনে এনেছেন রাশিয়া বিশ্বকাপেও। কিন্তু বিধাতা তাঁর ভাগ্যে এবারও শিরোপা লেখেননি। এবারও বিশ্বকাপটা অধরা থেকে গেল তাঁর।

বলা হচ্ছিল, এবার না পারলে মেসি আর কখনোই বিশ্বকাপ জিততে পারবেন না। বয়স একটি কারণ, আর্জেন্টিনার অসহিষ্ণু সমর্থকেরাও আরেকটি কারণ। গত বিশ্বকাপের চেয়েও মেসিকে বেশি হতাশ করেছে রাশিয়া বিশ্বকাপ। শেষ ষোলোতেই বাদ হতে হয়েছে এবার। তাই স্বভাবতই একটি প্রশ্ন চলেই আসে, মেসি কি অবসর নিতে চলেছেন?

ফ্রান্সের বিপক্ষে ৪-৩ গোলের হারের পর অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন মাসচেরানো ও লুকাস বিলিয়া। মেসি অবসর নেওয়ার ব্যাপারে কোনো মন্তব্য না করলেও কোপার সেই অবসরের মতো কিছু একটা হয়ে যেতে পারে বলেই ধারণা করছেন সবাই

মেসি গতবারের মতো আবেগি হয়ে অবসরের সিদ্ধান্ত নেবেন না বলেই আশা দীর্ঘদিনের বার্সেলোনা সতীর্থ মাসচেরানোর, ‘আশা করি মেসি জাতীয় দলের হয়ে আরও অনেকদিন খেলবে। সবার উচিত তাকে একটু একা থাকতে দেওয়া। সে জাতীয় দলের হয়ে খেলার সময় যত চাপে থাকে, আমার মনে হয়না পৃথিবীর কোনো ফুটবলার এত চাপ নেন। এখন মেসিকে শান্ত থাকতে হবে। পরিবারকে নিয়ে সে ছুটি কাটাতে যাক কোথাও। এরপর ফিরে এসে খেলা শুরু করতে হবে আগের মতো।’

অন্যদিকে আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড সার্জিও আগুয়েরো জানিয়েছেন, আকাশি-সাদা জার্সিতে তিনি আবারও মাঠে নামতে রাজি, ‘আমি দেশের হয়ে খেলতে প্রস্তুত। কোচ যদি আমাকে ডাকেন, আমি অবশ্যই দেশের হয়ে খেলব।’

কিন্তু মেসি? মেসি কী করবেন? ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে হারার পর অবশ্য তিনি বলেছিলেন, বিশ্বকাপ জিতেই তিনি অবসরে যাবেন। কিন্তু এর জন্য তাঁকে অপেক্ষা করতে হবে আরও চারটি বছর। কিন্তু মেসির বয়স যে এখনই ৩১। কাতার বিশ্বকাপে তা বেড়ে হবে ৩৫!

এ সিদ্ধান্ত মেসিকেই নিতে হবে। মেসি-ভক্তরা আশা করতেই পারেন, কাতার বিশ্বকাপেও আর্জেন্টিনার জার্সি গায়ে দেখা যাবে তাঁদের প্রিয় ফুটবলারকে।

আর্জেন্টিনা সমর্থকরাও হয়ত মাসচেরানোর মতো চাইছেন, মেসিকে যেন আরও অনেকদিন আকাশী নীল জার্সিতে দেখা যায়।