বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৯

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফের কাছে মেয়র নাছিরের চাওয়া

প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

প্রকাশিত: ০২ এপ্রিল ২০১৯ মঙ্গলবার, ০৯:০৬ এএম

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফের কাছে মেয়র নাছিরের চাওয়া

প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনকে চট্টগ্রামে আওয়ামীলীগের অভিভাবক আখ্যায়িত করে আগামীতে দলের সব নেতাকে এক মঞ্চে নিয়ে আসার জন্য অনুরোধ জানিয়েছের নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

নগরীর লালখান বাজার ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে সোমবার অনুষ্ঠিত গণসংবর্ধনা সভায় সংবর্ধিত অতিথি ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের কাছে এই আকুতি পেশ করেন তিনি।

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘১৯৯৭০ সাল থেকে এ পর্যন্ত আপনি ৭ বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। একাধিকবার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বও পালন করেছেন। একজন রাজনীতিবিদের যে প্রত্যাশা থাকে তার শতভাগ আপনার পূরণ হয়েছে। আপনার চাওয়া-পাওয়ার আর কিছু নেই। কিন্তু আওয়ামী লীগের কর্মী হিসেবে আপনার কাছে আমাদের একটা চাওয়া আছে।’

সেই চাওয়ার কথা তুলে ধরে আ জ ম নাছির বলেন, ‘চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের তিনটি সাংগঠনিক জেলা রয়েছে। এ তিনটি জেলায় আমাদের মধ্যে কিছু সমস্যা আছে। আমরা বক্তব্যের মঞ্চে যখন দাঁড়াই তখন মুখরোচক সুন্দর বক্তব্য দিয়ে থাকি। নির্বাচনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একজনকে দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দেন। কিন’ দেখা যায়, দলীয় সেই প্রার্থীর পড়্গে আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করি না। বরং দলীয় প্রার্থীকে পরাজিত করার জন্য সব ধরনের প্রচেষ্টা করা হয়। এটা নিষ্ঠুর বাস্তবতা।’

উপজেলা নির্বাচনের প্রসঙ্গ তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যাদের মনোনয়ন দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগ পরিবারের অনেকে সেই প্রার্থীদের পরাজিত করে নৌকা প্রতীককে কলঙ্কিত করেছেন। নৌকা প্রতীকের মর্যাদাহানি করেছেন। এরমাধ্যমে কি আওয়ামী লীগ কিংবা সরকারের ভাবমূর্তি বৃদ্ধি পেয়েছে ? বরং প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছি আমরা।’

ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফকে উদ্দেশ করে আ জ ম নাছির বলেন, ‘আপনার কাছে আমাদের প্রত্যাশা, আপনি আমাদের অভিভাবক। আপনি চাইলে আমাদের সবাইকে একমঞ্চে দাঁড় করাতে পারেন। পৃথিবী থেকে আমরা সবাই চলে যাবো, আপনিও চলে যাবেন। কিন’ আমরা যদি একটা দৃষ্টান্ত স্থাপন করে যাই, তাহলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা আমাদের মর্যাদার আসনে আসীন করবেন।’

জাতীয় পর্যায়ে গৌরবোজ্জ্বল ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদানের জন্য স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধ ক্যাটাগরিতে স্বাধীনতা পুরস্কারে ভূষিত হওয়া আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনকে গতকাল নগরীর ইঞ্জিনিয়ারস ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে গণসংবর্ধনা দেওয়া হয়। চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ যৌথভাবে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদসহ চট্টগ্রাম মহানগর, উত্তর ও দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন গণমানুষের নেতা। তিনি বিত্তশালী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছেন। তার বাবাও সংসদ সদস্য ছিলেন, বিত্তভৈববের মালিক ছিলেন। বিত্তভৈববের মালিক হওয়ার পর কারো কারো মধ্যে অহমিকা থাকে, গণমানুষের সাথে মেশার ড়্গেত্রে সীমাবদ্ধতা থাকে। কিন’ এটি মোশাররফ ভাইয়ের মধ্যে আমরা কখনো লড়্গ্য করিনি।’ আজকে তিনি স্বাধীনতা পদক পেয়েছেন। তার এ পদক প্রাপ্তির মাধ্যমে চট্টগ্রামবাসীও সম্মানিত হয়েছে’, ’বলেন হাছান মাহমুদ।

বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগ নেতা ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ তাঁর বক্তব্যে অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিচারণ করেন বলেন, ‘পেছনে ছিল শত্রু, সামনেও ছিল শত্রু। আমরা মুক্তিযোদ্ধা ও গেরিলারা যদি সেদিন ভেতরে না ঢুকতাম তাহলে ৯ মাসে কখনো দেশ স্বাধীন হতো না। পাক হানাদার বাহিনীর ৯৫ হাজার সুশিড়্গিত সৈন্যের সাথে সম্মুখযুদ্ধ করে আমরা দেশ স্বাধীন করেছি।’