শনিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২০

সীমিত হবে নববর্ষের অনুষ্ঠান, জনসমাগম থাকবে না

প্রতিবেদক, ঢাকা

প্রকাশিত: ৩১ মার্চ ২০২০ মঙ্গলবার, ১১:১৭ এএম

সীমিত হবে নববর্ষের অনুষ্ঠান, জনসমাগম থাকবে না

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সবাইকে এক যোগে কাজ করতে হবে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে সরকার যে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে পরিস্থিতি মোকাবেলায় তা আরো কিছুদিন বাড়াতে হতে পারে। ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের একটি বিষয় আছে। এ কারণে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি বাড়তে পারে।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামনে পহেলা বৈশাখ। এই বৈশাখের সঙ্গে বাঙ্গালির আবেগ অনুভূতি জড়িত। তারপরও পরিস্থিতি বিবেচনায় এবার জনসমাগম এড়িয়ে অনুষ্ঠান সীমিত করতে হবে।এখন ডিজিটালাইজেশনের সময়। প্রয়োজনে ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে আমরা অনুষ্ঠান করতে পারি।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে করোনাভাইরাস প্রতিরোধের লক্ষ্যে চলমান কার্যক্রম সমন্বয় করতে ৬৪টি জেলার সরকারি কর্মকর্তাদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স কথা বরেন। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে সকাল ১০টায় এ ভিডিও কনফারেন্স শুরু হয়।

বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসকরা (ডিসি) ছাড়াও ভিডিও কনফারেন্সে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এ কনফারেন্সে যুক্ত ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামনে বাংলা নববর্ষ রয়েছে। এই নববর্ষ আমাদের প্রাণের উৎসব। অত্যন্ত উৎসাহ ও জাঁকজমকপূর্ণ উৎসবের মাধ্যমে আমরা এই অনুষ্ঠান পালন করে থাকি। কিন্তু এ বছর আপনারা জানেন, আমরা ১৭ মার্চ ও ২৬ মার্চের সব অনুষ্ঠান সীমিত করেছি। কোনো ধরনের জনসমাগম যেন না হয়, আমরা সে নির্দেশনা দিয়েছি। নববর্ষের জন্যও একই নির্দেশনা থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তৃতায় বলেন, ছুটি বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হলেও যান চলাচলের ব্যাপারে একটি নির্দেশনা আসতে পারে। এ ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করে ঘোষণা দেব। তিনি বলেন, সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের কাজের সুযোগ কমে গেছে । এ মুহুর্তে তারা কষ্টে আছেন। সরকার সর্বাত্মকভাবে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। ত্রাণসহ প্রয়োজনীয় সব ধরণের সহায়তা নিশ্চিত করা হয়েছে।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, সামনে পহেলা বৈশাখ। এই বৈশাখের সঙ্গে বাঙ্গালির আবেগ অনুভূতি জড়িত। তারপরও পরিস্থিতি বিবেচনায় এবার জনসমাগম এড়িয়ে অনুষ্ঠান সীমিত করতে হবে।এখন ডিজিটালাইজেশনের সময়। প্রয়োজনে ডিজিটাল প্রযুক্তির মাধ্যমে আমরা অনুষ্ঠান করতে পারি।