শনিবার, ২৫ মে ২০১৯

শহীদ মিনারে ভাষাশহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা

প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

প্রকাশিত: ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ বৃহস্পতিবার, ১১:২৬ এএম

শহীদ মিনারে ভাষাশহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিজেদের তৈরি করা শহীদ মিনারে ফটিকছড়ি ধর্মপুর স্কুলের শিক্ষার্থীদের শ্রদ্ধা

বিনম্র শ্রদ্ধার ভাষা শহীদদের স্মরণ করছে চট্টগ্রামবাসী। ভোরের আলো উজ্বল হওয়ার পর থেকে শহীদ মিনারে মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। এর আগে রাত ১২টার পর থেকে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণ শুরু হয়।

সাবেক মন্ত্রী, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এবং রেল মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী প্রথমে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

এরপর চট্টগ্রামের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন কাউন্সিলর এবং সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তাদের নিয়ে শহিদ মিনারে ফুল দেনচট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালামও নির্বাচিত সদস্য ও কর্মকর্তা-কর্মচারিদের নিয়ে শহিদ মিনারে যান। কর্মকর্তা- কর্মচারিদের নিয়ে ফুল দিয়েছেন চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম।

চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো.আব্দুল মান্নান, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক, সিএমপি কমিশনার মো.মাহাবুবর রহমান, চট্টগ্রামের পুলিশ সুপার নূর ই আলম মিনা, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো.ইলিয়াস হোসেনও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন।
মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, চট্টগ্রাম জেলা ও মহানগর কমান্ডের নেতারা শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেছেন।  তাদের সঙ্গে ছিল মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড।  চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকেও শহিদ মিনারে ফুল দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন (সিইউজে) এবং চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের নেতারাও ভাষা শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। ট্যুরিস্ট পুলিশ, শিল্প পুলিশ, পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই), শিল্প পুলিশ, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকেও ফুল দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সহযোগী সংগঠন, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ছাত্র, যুব, শ্রমিক, কৃষক সংগঠনের নেতা-কর্মীসহ সর্বস্তরের মানুষ শ্রদ্ধা জানালে ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় শহীদ মিনারের বেদি।

এদিকে মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে শহীদ মিনার ও আশেপাশের এলাকা ঘিরে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। মোতায়েন করা হয়েছে ১ হাজার ২০০ পু্লিশ সদস্য।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন  বলেন, `শহীদ মিনার এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। সবাই সুশৃঙ্খলভাবে শহীদ মিনারে ফুল দিচ্ছেন। কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।`

ঘোষণামঞ্চে ছিলেন অ্যাডভোকেট শেখ ইফতেখার সাইমুল ও বিএফইউজের সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী।

সকাল ৯টা ২৫ মিনিটে শ্রদ্ধা জানান চট্টগ্রামের ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনের প্রতিনিধি দল। নেতৃত্ব দেন সহকারী হাইকমিশনার অনিন্দ্য ব্যানার্জি। তিনি  বলেন, একুশ আমাদের জন্য গর্বের। বায়ান্নের একুশে ফেব্রুয়ারি মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকারের দাবিতে ঢাকার মিছিলে পুলিশের গুলিতে শহীদ হন অনেকে। এটি বেদনার। আবার এ দিনটি যে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছে এটি আনন্দের। শহীদ মিনারে মানুষের ঢল দেখে আমার খুব ভালো লাগছে।

সকালে ফুল দিয়েছে বঙ্গবন্ধু প্রকৌশল পরিষদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট, চিটাগাং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশ বুড্ডিস্ট ফাউন্ডেশন, উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ, লায়ন্স ক্লাব, সরকারি সিটি কলেজ, খেলাঘর, ধ্রুবতারা স্কুল, শতায়ু অঙ্গন, সংগীত পরিষদ, অপর্ণাচরণ সিটি করপোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, হাজি মুহাম্মদ মহসিন কলেজ, সীতাকুণ্ড সমিতি, ছাত্রলীগ, চবি ২৪তম ব্যাচ, উত্তর জেলা বিএনপি, পাবনা- সিরাজগঞ্জ জেলা কল্যাণ সমিতি, চট্টগ্রাম যন্ত্রশিল্পী সংস্থা, আইন সহায়ক কেন্দ্র, নগর মহিলা আওয়ামী লীগ, অনোমা, নগর ফুলসহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ক্রীড়া ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

সারাবেলা/এআরে/এএম