সোমবার, ১৩ জুলাই ২০২০

বাজেটে সাধারণ মানুষ কী পাচ্ছে

প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

প্রকাশিত: ১১ জুন ২০২০ বৃহস্পতিবার, ০৮:০৬ পিএম

বাজেটে সাধারণ মানুষ কী পাচ্ছে

প্রস্তাবিত ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে সাধারণ মানুষের কী লাভ কী ক্ষতি। কোন পণ্যের দাম বাড়বে আবার কোনটার দাম কমবে ? এ নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে আছে নানা কৌতুহল।

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) কারণে স্থবির দেশের অর্থনীতি। এ পরিস্থিতিতে টিকে থাকা ও অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের প্রত্যাশা সামনে রেখে আগামী ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার প্রস্তাবিত বাজেট জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এবারের বাজেটের শিরোনাম— অর্থনৈতিক উত্তরণ ও ভবিষ্যৎ পথ পরিক্রমা।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বৃহস্পতিবার বেলা ৩টায় জাতীয় সংসদে নতুন অর্থবছরের বাজেট পেশ করেন।

মোবাইলে কথা বলতে বেশি খরচ

বাজেটে সাধারণ মানুষের উপর সরাসরি প্রভাব পড়বে কথা বলার খরচ বাড়ার কারণে। বাজেটে মোবাইল সিম বা রিম কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে সেবার বিপরীতে সম্পূরক শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে। নতুন করহারে মোবাইল সেবার ওপর মূল্য সংযোজন কর (মূসক বা ভ্যাট) ১৫ শতাংশ, সম্পূরক শুল্ক  ১৫ শতাংশ ও সারচার্জ ১ শতাংশ হলো। ফলে মোট করভার দাঁড়াবে ৩৩ দশমিক ৫৭ শতাংশ।

অর্থাৎ প্রতি ১০০ টাকা রিচার্জে সরকারের কাছে কর হিসেবে যাবে ২৫ টাকার কিছু বেশি। এতদিন তা ২২ টাকার মতো ছিল। ফলে মোবাইল ফোনে কথা বলা, এসএমএস পাঠানো এবং ডেটা ব্যবহারের খরচও বেড়ে যাবে।

গত অর্থবছরের বাজেটে মোবাইল সিম বা রিম কার্ড ব্যবহারের মাধ্যমে সেবার বিপরীতে সম্পূরক শুল্ক ৫ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করা হয়েছিল।

আয়করের সীমায় মধ্যবিত্ত ও চাকরিজীবীর লাভ

বর্তমানে ব্যক্তি শ্রেণির করমুক্ত আয়ের সীমা আড়াই লাখ টাকা। প্রস্তাবিত বাজেটে তা করা হয়েছে ৩ লাখ টাকা। এতে নিম্ন-মধ্যবিত্ত ও চাকরিজীবীরা উপকৃত হবেন। টানা পাঁচ বছর পর করমুক্ত আয়ের সীমা বাড়ছে।

নতুন বাজেটে করমুক্ত আয়ের সীমা ৫০ হাজার টাকা বাড়িয়ে ৩ লাখ টাকা করা হচ্ছে। নারী, প্রতিবন্ধী ও গেজেটভুক্ত মুক্তিযোদ্ধাদের সীমা বাড়ছে আনুপাতিক হারে। অন্যদিকে সর্বোচ্চ করহার ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে। একইভাবে সর্বনিম্ন করহার ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

করোনা চিকিৎসায় সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার

কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য স্বাস্থ্যখাতে অর্থ বরাদ্দে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার প্রদান করেছে সরকার। এ লক্ষ্যে সরকার বিভিন্ন পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং তা বাস্তবায়ন করছে।

কোভিড-১৯ নিরাময়ের জন্য সরকার বিশেষায়িত হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা, করোনা টেস্টের জন্য ল্যাবরেটরি স্থাপন, করােনাভাইরাসজনিত রােগের চিকিৎসাসরঞ্জাম, পিপিই সংগ্রহ এবং স্বাস্থ্যসেবা সম্প্রসারণ, ঢাকা ও ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলােতে আইসােলেশন ইউনিট স্থাপনের জন্য অতিরিক্ত ৩০০ কোটি টাকা এবং করোনা চিকিৎসায় সরাসরি দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারীদের মধ্যে যারা সংক্রমিত হতে পারেন বা মারা যেতে পারেন তাদের সম্মানী ও ক্ষতিপূরণ বাবদ ৮৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে।

দাম কমতে পারে যেসব পণ্যের...

প্রস্তাবিত বাজেটে অটোমোবাইল, ফ্রিজ, এসির ওপর মূল্য সংযোজনের (মূসক) অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। ফলে এসব পণ্যের দাম কমতে পারে।

প্রস্তাবিত বাজেটে দেশীয় সরিষা তেলে মূল্য সংযোজন কর (মূসক) অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।
স্বর্ণ আমদানিতে মূসক অব্যাহতি।
অটোমোবাইল ফ্রিজ এসির ওপর মূসক অব্যাহতি।
ডিটারজেন্টের কাঁচামালের ওপর শুল্ক কমানোর প্রস্তাব করা হয়েছে।
স্যানিটারি ন্যাপকিন ও ডায়াপারের কাঁচামাল আমদানিতে রেয়াতি সুবিধা বাড়ানো হবে।
ইস্পাত শিল্পের রিফ্রাক্টরি সিমেন্টের ওপর শুল্ক কমানো হবে।
এলপিজি সিলিন্ডারের দাম কমতে পারে।
রেফ্রিজারেটর ও এসির কাঁচামাল আমদানিতে বিদ্যমান রেয়াতি সুবিধা বাড়ানো হচ্ছে।

দাম বাড়তে পারে যেসব পণ্যের...

বিলাসবহুল পণ্য যেমন গাড়ি, ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, সিগারেটসহ বেশ কিছু পণ্যের শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। 

শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত লঞ্চের টিকিট খরচ বাড়বে। আগে ৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর ছিল, নতুন অর্থবছরে তা বাড়িয়ে ১০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।
চার্টার্ড বিমান ও হেলিকপ্টার ভাড়ার ওপর সম্পূরক শুল্ক ২৫ শতাংশ থেকে ৩০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।
প্রসাধনসামগ্রীর ওপর সম্পূরক শুল্ক ৫ থেকে ১০ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।
পেঁয়াজ আমদানিতে কিছুটা শুল্ক আরোপ হবে।
আসবাব কেনায় মূসক বেড়েছে। ৫ থেকে সাড়ে ৭ শতাংশ করা হয়েছে।
মোবাইল ফোনে কথা বলার ওপর কর বাড়ছে।
কার ও জিপ রেজিস্ট্রেশনসহ বিআরটিএ প্রদত্ত অন্যান্য সার্ভিস ফির ওপর সম্পূরক শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে বাড়িয়ে ১৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।
সিরামিকের সিঙ্ক বেসিনের ওপর ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা হয়েছে। মধুর বাল্ক আমদানি শুল্ক বাড়ছে। বিদেশি মধুর দাম বাড়বে।