সোমবার, ২৭ মে ২০১৯

খুনী ছেলেকে ধরিয়ে দিলেন মা

প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

প্রকাশিত: ১৯ এপ্রিল ২০১৯ শুক্রবার, ০৮:৫৫ এএম

খুনী ছেলেকে ধরিয়ে দিলেন মা নিহত শাহাদাত (বামে), অভিযুক্ত ফরহাদ মায়ের সঙ্গে (ডানে)

চট্টগ্রাম নগরীর পাঁচলাইশ থানার হামজারবাগ হিলভিউ এলাকায় কথা কাটাকাটির জের ধরে বন্ধুর ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন শাহাদাত হোসেন মিতা (২৩) নামের এক যুবক। ছুরিকাঘাতে শাহাদাতের মৃত্যুর খবর শুনে পালিয়ে যায় হত্যাকারী বন্ধু ফরহাদ।

এ ঘটনার ছয় ঘণ্টার মাথায় খুনি ছেলেকে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন মা। বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বায়েজিদ থানাধীন হিলভিউ আবাসিক এলাকার এক নম্বর গলিতে এ খুনের ঘটনাটি ঘটে।

নিহত শাহাদাত বায়েজিদ ব্যাংক কলোনির বাসিন্দা আব্দুল হামিদের ছেলে। তার গ্রামের বাড়ি ঢাকায়। তিনি এক বন কর্মকর্তার গাড়ির ব্যক্তিগত চালক হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন। অন্যদিকে ঘাতক ফরহাদুর রহমানের মা ফাতেমা রহমান ময়না পশ্চিম ষোলষহর ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদিকা বলে জানা গেছে।

নিহত শাহাদাতের ছোট ভাই অপু বলেন, হিলভিউ আবাসিক এলাকায় তাদের পরিবারের একটি লেপ-তোশকের দোকান রয়েছে। সেখানে আরও ৬/৭টি দোকানও রয়েছে। নিজেদের ওই দোকানটির ১শ’ গজ দূরে তার ভাইয়ের ওপর এই ছুরিকাঘাতের ঘটনা ঘটে বলে জানায় অপু।

অপু স্থানীয়দের বরাত দিয়ে জানায়, দুপুরে ফরহাদ নামে এক যুবক একটি দোকানে গিয়ে ভাঙচুর করছিল। এ সময় সে দোকানের মধ্যে থাকা একটি টিভিতে লাথি মারছিল। ওই পথ ধরে তখন আমার ভাই হেঁটে যাচ্ছিল। এ ঘটনাটি দেখে সে প্রতিবাদ করেছিল। এ সময় সে শাহাদাতকে চট্টগ্রামের ভাষায় গালিগালাজ করেছিল, তুমি কেন এখানে নাক গলাতে এসেছো। দু’জনের মধ্যে তখন ঝগড়াও হয়েছিল। এক পর্যায়ে ফরহাদ সেখান থেকে চলে গিয়ে আবার ঘুরে ঘটনাস্থলে এসে পেছন থেকে ভাইকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে বায়েজিদ থানার ওসি (ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা) আতাউর রহমান খন্দকার   বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে প্রতিবেশী ফরহাদ ছুরি মেরেছিল শাহাদাতকে। রক্তাক্ত অবস্থায় পরে তাকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানান ওসি। এছাড়া অভিযুক্ত ফরহাদকে কর্ণফুলী থানার চরপাথরঘাটা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এদিকে বন্ধু শাহাদাতকে ছুরিকাঘাতে হত্যার পর এলাকা থেকে পালিয়ে যায় ফরহাদ। এরপর মুঠোফোনে তার মা ফাতেমা রহমান ময়নার সাথে কথা বলে বন্ধু শাহাদাতকে ছুরিকাঘাতে হত্যার কথা স্বীকার করে কান্না করে। সন্তানের কাছে বিস্তারিত জেনে নিয়ে তার মা পুলিশকে ছেলের সন্ধান দেন। এরপর পুলিশ ফরহাদকে কর্ণফুলী উপজেলার চরপাথরঘাটা এলাকা থেকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় বায়েজিদ বোস্তামি থানা পুলিশ।