ঢাকা, শনিবার, ২১ এপ্রিল ২০১৮

কি খবর বল, কতদিন দেখা হয়নি...

ফারজানা আকতার

প্রকাশিত: ১২ জানুয়ারি ২০১৮ শুক্রবার, ০৭:৩৪ পিএম

কি খবর বল, কতদিন দেখা হয়নি...

বন্ধু কি খবর বল , কত দিন দেখা হয়নি...। সুমনের গানের মতোই শুক্রবার অপর্ণাচরণ সিটি কর্পোরেশন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মিলনমেলায় হারানো বন্ধুদের নিয়ে উচ্ছ্বসিত ছিলেন বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সবাই।

দুই দিনব্যাপী প্রথম পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের প্রথম দিন শুক্রবার স্কুল প্রাঙ্গনে ছিল শিক্ষার্থীদের ভিড়। এ যেন নবীন-প্রবীণের মেলবন্ধন। ৯০ বছরের প্রাচীন এই বিদ্যাপীঠের ১২শ’ ছাত্রী অংশ গ্রহণ করার জন্য নিবন্ধন করিয়েছেন।

সত্তরের দশকে অপর্ণাচরণ স্কুলের ছাত্রী ছিলেন শর্মিলা চৌধুরী। তাঁর দুই মেয়েও এই স্কুলে পড়ালেখা করেন। মেয়েদের সাথে নিয়ে তিনি আসেন পুনর্মিলনীতে। জানালেন ‘এখন যৌবন যার যুদ্ধে যাবার তার শ্রেষ্ঠ সময়’। এরকম আঠারোর উজ্জ্বল যৌবনে যাদের সাথে দেখা হয়েছিলো স্বপ্নের ক্যাম্পাসে, আজ ৪০ বছর পরে তাদের কারো কারো সাথে দেখা হলো। কথা হলো, আড্ডা হলো। মনে হলো আমরা যেন ফিরে গেলাম সেই আগেই সময়ে। এক জীবনে মানুষ কতটুকু পায়? কোন কোন জীবন রাতে ফোটা শিউলির মত ভোরেই ঝরে যায়। কারো কারো জীবন দীর্ঘ হয়। অভিজ্ঞতার ঝুলিতে জমতে থাকে কত কত স্মৃতি।

নাসমিন আকতার স্কুল ছেড়েছেন ১৫ বছরের বেশি হয়। পুনমিলনীতে এসে তিনিও যেন ফিরে যান দূরন্ত কৈশোরে। নীল রঙের শাড়ির সঙ্গে মাথায় ফুলের সাজ। সাথে উৎসবের রঙ ছড়ানো লাল রঙের ব্যাগ। যেন স্কুলবেলার স্মৃতিময় দূরন্তপনা।
নাসরিন আকতার নিঝুম স্কুলের গন্ডি পেরিয়ে অনেক আগে সংসারী হয়েছেন। পরিবারের নানা দায়দায়িত্বের মধ্যেও পুরনো বান্ধবীদের সঙ্গে মিলিত হওয়ার আশায় প্রাণের টানে সামিল হন স্কুল প্রাঙ্গনে। দিনভর উৎসবের ছবি তোলে অপর্ণা বড়–য়া, প্রিয়াংকা বড়–য়া, সুপ্রভা নাথ, অনন্যা বড়–য়াসহ আরো কয়েকজন সহপাঠীর সঙ্গে সামাজিক মাধ্যমে ছবি শেয়ার করে জানিয়েছেন ফেলে আসা দিনগুলোর কথা।
কুয়াশাঘেরা ভোরে সবুজ আঙ্গিনায় দুর্বাঘাসের উপর জমা শিশিরবিন্দু যেমন এক হয়ে উপচে পড়ে জলের ধারায়। তেমনি করে হাসি-আনন্দের ঝর্ণাধারায় পুনর্মিলনীতে দিনভর ব্যস্থ সময় কাটান প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা। হাসি-ঠাট্টা, পুরনো দিনের স্মৃতি ছুঁয়ে দেখা, গল্প-আড্ডায় দিনটি পার করছেন তারা।

পুনর্মিলনী পরিষদের আহবায়ক প্রফেসর ড. জয়নাব বেগম জানান, পুনর্মিলনীতে প্রাক্তন ১২শ জন ছাত্রী অংশ নিয়েছেন।১৯২৭ সালে স্কুলটি প্রতিষ্ঠিত হয়। শিক্ষানুরাগী মহিয়সী নারী কালীতারা দেবীর বসত বাড়ির বৈঠকখানায় মাত্র ৮জন ছাত্রী নিয়ে প্রাথমিক বিদ্যালয় হিসেবে এই স্কুলের যাত্রা শুরু হয়।

দু’দিনব্যাপী আয়োজনের প্রথম দিনের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের নিয়ে স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে ডিসি হিল পর্যন্ত র‌্যালি বের করা হয়। দ্বিতীয় দিনে লাভ লেনের স্মরণিকা কমিউনিটি সেন্টারে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান জাতীয় সঙ্গীত দিয়ে শুরু হবে। সাথে প্রাক্তন ছাত্রীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ‘পুরানো সে দিনের কথা’ তথ্যচিত্র প্রদর্শিত হবে। তথ্যচিত্রে কলকাতার প্রবীণ শিক্ষার্থী রেখা চট্টপাধ্যায় তাঁর স্কুলজীবনের স্মৃতি ব্যক্ত করবেন।