ঢাকা, সোমবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭

মোবাইলের আইএমইআই বদলে যায় রেয়াজুদ্দিন বাজারে

সারাবেলা প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ মঙ্গলবার, ০৯:১১ এএম

মোবাইলের আইএমইআই বদলে যায় রেয়াজুদ্দিন বাজারে চোরাই মোবাইলসহ আটক সংঘবদ্ধ চক্রের সদস্যরা

নগরীর রিয়াজউদ্দিন বাজারে পৃথক অভিযান চালিয়ে পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট (সিটি) বিপুল পরিমাণ চোরাই ও আইএমইআই পরিবর্তন করা মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করেছে।
গতকাল রবিবার নগরীর রিয়াজউদ্দিন বাজার ও ফটিকছড়ি উপজেলায় অভিযান চালিয়ে ৯২টি মোবাইল সেট উদ্ধার করেছে নগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট।

কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের প্রধান ও নগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ–কমিশনার (বন্দর) মো. শহীদুল্লাহ জানান, রবিবার কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সদস্যরা এ অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযানে বিভিন্ন ধরনের ৯২টি মোবাইল সেট ও আটজন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়।
যাদের মধ্যে দুইজন দোকান মালিক ও দুইজন মোবাইল ছিনতাই ও চুরির সাথে জড়িত এবং অন্যরা আইএমইআই পরিবর্তনের সাথে সম্পৃক্ত।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলো : ফটিকছড়ি বিবিরহাটের আনন্দ টেলিকমের মালিক অজিত চক্রবর্ত্তী ওরফে টুকু (৪৩), রিয়াজউদ্দিন বাজারের নাহিয়ান টেলিকের মালিক মো. তারেক হোসেন (২৪), নুরুন্নবী (৪০), আলী হোসেন (৩০), ছাবের আহমদ (২৬), মিজানুর রহমান (২১), আরিফুল ইসলাম ওরফে শাওন (১৮) ও মাইন উদ্দিন জিসান (১৮)।

অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া নগর গোয়েন্দা পুলিশ ও কাউন্টার টেরোরিজমের অতিরিক্ত উপ–কমিশনার এএএম হুমায়ন কবির জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সিআরবি এলাকা থেকে মোবাইল ফোন ছিনতাইকারী নুর নবী ও আলী হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে মোবাইল ফোন ছিনতাই ও চুরির কথা স্বীকার করে জানিয়েছে তারা চোরাই সেটগুলো নগরীতে বিক্রি না করে ফটিকছড়ি বিবিরহাট এলাকায় আনন্দ টেলিকম নামে একটি দোকানে বিক্রি করে। এ তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে আনন্দ টেলিকম থেকে ১৫টি মোবাইল সেট উদ্ধার করা হয়। যার মধ্যে তিনটি নবী ও হোসেনের কাছ থেকে কেনা ও বাকী ১২টি আইএমইআই পরিবর্তন করা, যেগুলো মালিক টুকু রিয়াজউদ্দিন বাজার থেকে কিনেছে বলে জানিয়েছে। এডিসি হুমায়ন বলেন, সে তথ্যের ভিত্তিতে রবিবার সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত রিয়াজউদ্দিন বাজার তামাকমুন্ডি  লেনে অভিযান চালিয়ে চোরাই ও আইএমইআই পরিবর্তন করা সেট উদ্ধার করা হয়।

অভিযানে নাহিয়ান টেলিকম নামে একটি দোকান থেকে ১২টি আইএমইআই পরিবর্তন করা, টাচ প্লাস থেকে ৩০টি আইএমইআই পরিবর্তন করা, ১২টি চোরাই ও নেক্স টাইম থেকে বাকী সেটগুলো উদ্ধার করা হয়।

পুলিশ কর্মকর্তা হুমায়ন আরও বলেন, গত ৪ মে আমরা ন্যাশনাল টেলিকম ও টেকনোলজি নামে একটি দোকানে অভিযানে চালিয়ে আইএমইআই পরিবর্তন করার অভিযোগে দোকান মালিক ও তার সহকারী নুরুন্নবী লিটন নামে দুইজনকে গ্রেপ্তার করি। এর আগেও তাদের কাছ থেকে আইএমইআই পরিবর্তন করার সরঞ্জাম উদ্ধার করেছিলাম। এরপর থেকে আমরা রিয়াজউদ্দিন বাজারে মোবাইল ফোনের দোকানগুলোতে নজরদারি বাড়িয়েছি। এদিকে, আইএমইআই পরিবর্তন করা সেটগুলো নিয়ে পড়তে হয় আইন–শৃঙ্খলা বাহিনীকে পড়তে হয় ভোগান্তিতে।

পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) চট্টগ্রাম মেট্রোর পরিদর্শক সন্তোষ চাকমা বলেন, সম্প্রতি ঠাকুরগাঁও জেলা পুলিশের অনুরোধে পিবিআই মোবাইল সেট চুরির সংঘবদ্ধ একটি দলের বিষয়ে তদন্ত করি। তদন্তে লিটন চক্রবর্ত্তী নামে চোর চক্রের এক সদস্যের বিষয়ে তদন্ত করতে গিয়ে একই আইএমইআই’র দুইটি সেটের সন্ধান পাই। এতে করে আমাদের তার অবস্থান শনাক্ত করতে কষ্ট হয়েছে।

পিবিআই কর্মকর্তা সন্তোষ জানান, ওই চোর চক্রকে গ্রেপ্তারের পর তারা সোহেল টেলিকম নামে রিয়াজউদ্দিন বাজারের একটি দোকানের সন্ধান দেয়। পর ২০ সেপ্টেম্বর দোকানটিতে অভিযান চালিয়ে ৪৫টি চোরাই সেট উদ্ধার করি, যার মধ্যে সাতটি সেটের আইএমইআই পরিবর্তন করা।